মুশফিক, ভাঙতে হবে নিজেকে!

আরিফুল ইসলাম | আপডেট: | প্রিন্ট সংস্করণ

‘গ্যাম্বলিং!’ মুশফিকুর রহিমই বললেন তো? কাল সংবাদ সম্মেলনে খুব কাছ থেকে দেখে, নিজ কানে শুনেও বিশ্বাস করাটা ছিল কঠিন। সত্যিই বাংলাদেশ অধিনায়কের মুখনিঃসৃত শব্দ গ্যাম্বলিং?
মুশফিকের নিবেদন নিয়ে প্রশ্ন নেই বিন্দুমাত্র। দলের সবচেয়ে ফিট ক্রিকেটার তিনি। অনুশীলন থেকে ম্যাচ, প্রতিটি মুহূর্তে নিজের সর্বোচ্চটা ঢেলে দিতে চান। কিন্তু প্রশ্ন যখন নেতৃত্বের, গত কিছুদিনে সেটা অনেকবারই হয়েছে প্রশ্নবিদ্ধ। বাংলাদেশের বেশির ভাগ সাবেক অধিনায়কের মতো মুশফিকও বরাবরই ‘ছকে বাঁধা’। প্রতিপক্ষের জন্য তো বটেই, অনেক সময় দর্শকের জন্যও সহজ অনুমেয় তাঁর অধিনায়কত্ব। মাঠের বাইরে বাঁধা ছকের জাল ভেতরে ছিঁড়তে পেরেছেন খুব কমই। শ্রীলঙ্কা সিরিজ আর এশিয়া কাপে বেশ কবারই প্রকট হয়েছে অধিনায়ক মুশফিকের চিন্তাভাবনার পরিধি আর সাহসিকতার সীমাবদ্ধতা। ঠিক এই সময়েই অপেক্ষা করছে মুশফিকের নেতৃত্বের আরেকটি কঠিন পরীক্ষা। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।
টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের চাহিদাই হলো গতিশীল ও বৈচিত্র্যময় নেতৃত্ব। প্রতিটি মুহূর্তেই এখানে ভাঙতে হয় নিজেকে। অনেক সময়ই আপস করতে হয় নিজের সঙ্গে, পরমুহূর্তেই ছুটতে হয় রোমাঞ্চের পেছনে। কিছু ঘটার অপেক্ষায় না থেকে বরং নিজ থেকেই ঘটানোর উদ্যোগ নিতে হয়। গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তগুলো চুরি করে নিতে হয়। নেতৃত্বে একই সঙ্গে থাকতে হয় প্রত্যুৎপন্নমতিত্ব এবং দূরদর্শিতা। খেলার ভাষা পড়ে, পরিস্থিতি বুঝে সিদ্ধান্ত নিতে হয় দ্রুত। এই গতির রথে চড়তে কতটা প্রস্তুত অধিনায়ক মুশফিক? ‘আশা তো করি, প্রস্তুত থাকব...গ্যাম্বলিং হোক বা যেকোনো সময় যেকোনো পরিবর্তন করি, চাইব সেটা যেন ক্লিক করে।’ মুশফিক বললেন বটে, তবে জুয়াখেলার আশ্বাসে ভরসা করার বিশ্বাস মিলছে না তাঁর গত কিছুদিনের অধিনায়কত্বে।
শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তানকে বাগে পেয়েও যে বাংলাদেশ হারাতে পারেনি, বড় একটা কারণ মুশফিকের অতিরক্ষণাত্মক অধিনায়কত্ব। ৬৭ রানে প্রতিপক্ষের ৮ উইকেট কিংবা ৯০ রানে ৫ উইকেট তুলে নেওয়ার পর যখন আরও চেপে ধরার কথা, মুশফিক তখন ভাবতে শুরু করেছেন ব্যাটিং পাওয়ার প্লে বা ইনিংসের শেষদিককার কথা। মূল বোলারদের পাওয়ার প্লের জন্য জমিয়ে রেখে বোলিং করিয়েছেন পার্টটাইমারদের, আলগা হয়েছে ফাঁস। জুটি খানিকটা গড়ে উঠতে না-উঠতেই ফিল্ডিং ছড়িয়ে দিয়ে আরও আলগা করে দিয়েছেন বাঁধন।
কোহলি-রাহানে বা স্টানিকজাই-শেনোয়ারিরা যখন বড় জুটি গড়ে তুলছেন, মুশফিককে মনে হয়েছে অসহায়। কোহলি ছন্দে থাকলে বিশ্বের সব বোলিং আক্রমণকে হয়তো তুলাধোনা করে ছাড়েন, কিন্তু আউট করার চেষ্টাটা তো থাকতে হবে! বোলিংয়ে ছিল না পরিকল্পনার ছাপ, অধিনায়ক বাতলে দিতে পারেননি পথ। ফিল্ডিং পজিশনে ভিন্ন কিছু চেষ্টা করার পথে তো কখনোই হাঁটেননি। ড্রাইভ ভালো খেলা ব্যাটসম্যানের জন্য হয়তো কিছুক্ষণ দুটি শর্ট কাভার রেখে ড্রাইভ খেলানোর চেষ্টা করা যায় কিংবা সোজা ব্যাটে ভালো খেলা ব্যাটসম্যানের জন্য নন-স্ট্রাইক প্রান্তের ব্যাটসম্যানকে ঘেঁষে রাখা যায় কোনো ফিল্ডার। কোহলি-সাঙ্গাকারা-জয়াবর্ধনের মতো ব্যাটসম্যানরা থিতু হয়ে গেলে নাটকীয় কোনো বোলিং পরিবর্তন করা কিংবা অভাবনীয় কোনো জায়গায় ফিল্ডার রাখা। এশিয়া কাপের শেষ ম্যাচটির কথাই ভাবুন। ম্যাথুস-চতুরঙ্গরা যখন একের পর এক ব্লক করে সাকিবের ওভার শেষ করে দিচ্ছেন, তখন কেন নয় একটি স্লিপ বা সিলি পয়েন্ট কিংবা সিলি মিড অন-অফ? প্রথাগত পথে কাজ না হলে কেন নয় ভিন্ন কিছু চেষ্টা করা! এসবে কাজ হবেই, সেই নিশ্চয়তা নেই। কিন্তু প্রতিপক্ষকে একটু ভাবানো, একটু ভড়কে দেওয়া, খানিকটা অস্বস্তিতে ফেলা তো যায়।
গত দুই সিরিজে বারবার প্রশ্ন উঠেছে একাদশ নির্বাচন নিয়েও। প্রশ্ন উঠেছে একাদশে জায়গা পাওয়া কজনের ভূমিকা নিয়ে। বাজে ফর্মের কারণে বাদ দেওয়া মাহমুদউল্লাহকেই আবার চোট পাওয়া সোহাগ গাজীর বদলে নেওয়া হয়েছে। দলে এসে মাহমুদউল্লাহ আবার সরাসরি একাদশেও ঢুকে গেছেন। অধিনায়ক যুক্তি দেখিয়েছেন মাহমুদউল্লাহর বোলিং সামর্থ্যকে। পরদিনই আবার মাহমুদউল্লাহকে পর্যাপ্ত বোলিং না দেওয়ার কারণ হিসেবে বলেছেন, ‘আপনারাই বলেন রিয়াদ ভাই অরিজিনাল বোলার নয়।’ সোহাগের বদলে স্পেশালিস্ট বোলার সানি কেন নয়, এই প্রশ্নে মুশফিক বললেন, ‘সানি ভাই কয়েকটি ম্যাচে ভালো বোলিং করেছে...সৌভাগ্যবশত..।’ দলের নতুন একজন সম্পর্কে যখন অধিনায়ক এমন বলেন বা বিভ্রান্তিকর কথা বলেন সিনিয়র কারও ভূমিকা নিয়ে, সবাইকে সেটি ভুল বার্তা দেয়।
একাদশ নির্বাচন থেকে শুরু করে প্রতিটি সিদ্ধান্তেই তাই নিজের ও দলের প্রতি সৎ থাকতে হবে অধিনায়ককে। দাঁড়াতে হবে আয়নার সামনে। আর মাঠের ভেতরে হতে হবে উদ্ভাবনী, সাহসী, দূরদর্শী। বাংলাদেশের মতো সীমিত সামর্থ্যের দলকে নেতৃত্ব দেওয়া সহজ নয়। আবার অধিনায়কত্ব ছাপিয়ে সত্যিকারের নেতা হওয়ার সুযোগ এসব দলেই বেশি। আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মুশফিকের জন্য নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়া, নতুন করে চেনানোর সুযোগ। চ্যালেঞ্জটা নিতে সত্যিই প্রস্তুত তো, অধিনায়ক?

পাঠকের মন্তব্য ( ১২ )

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনি কি পরিচয় গোপন রাখতে চান
আমি প্রথম আলোর নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
   
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫
ফোনঃ ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্সঃ ৯১৩০৪৯৬, ই-মেইলঃ info@prothom-alo.info
 
topউপরে