সব

হাল না ছাড়ার গল্প

প্রিন্ট সংস্করণ

শেষ আটে জয়ের পর বিস্ময়, আনন্দ, কান্না—কী ছিল না লুচিচ-বারোনির অভিব্যক্তিতে! l রয়টার্স‘আজ আবার সেই পথে দেখা হয়ে গেল...’।
না, এ গান কখনো শোনা হয়নি মিরিয়ানা লুচিচ-বারোনির। কিংবা সেরেনা উইলিয়ামসের প্রতিও কখনো এ গানের অনুভূতি জানানোর কথা নয় তাঁর। তবু আজ যখন কোর্টে মুখোমুখি হবেন দুজন, লুচিচ-বারোনির মনের কোণে কোণে ভেসে বেড়ানোর কথা এ গানের সুর।
১৯৯৮ সালের উইম্বলডনে সর্বশেষ কোনো গ্র্যান্ড স্লামে দেখা হয়েছিল লুচিচ-বারোনি ও সেরেনার। লুচিচ-বারোনি দ্বিতীয় রাউন্ডের সে ম্যাচ সরাসরি সেটে হারলেও সম্ভাব্য এই দ্বৈরথের দিকে সবাই তাকিয়ে ছিল আগ্রহভরে। টেনিসের ভবিষ্যৎ তারকা হিসেবে মার্টিনা হিঙ্গিস, উইলিয়ামস বোনদের সঙ্গে একনিশ্বাসে উচ্চারিত হতো ক্রোয়াট বিস্ময়বালিকার নাম।
সেদিনের সেই ষোড়শী আজ ৩৪ বছর বয়সী নারী। সেরেনা ভবিষ্যদ্বাণীকে সত্য করেছেন। এককে ২২টি গ্র্যান্ড স্লাম জয় করে উন্মুক্ত যুগের রেকর্ড ছুঁয়েছেন। স্বপ্ন দেখছেন এবারের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জিতে রেকর্ড থেকে স্টেফি গ্রাফকে সরিয়ে দেওয়ার। কিন্তু লুচিচ-বারোনি? হেঁটেছেন উল্টো পথে। তাঁর প্রতিভার শেষ স্ফুরণ দেখা গিয়েছিল পরের উইম্বলডনে (১৯৯৯)। টেনিসের রথী-মহারথীদের হারিয়ে সেমিফাইনালে হেরে গিয়েছেন গ্রাফের কাছে। সেই যে পথ হারালেন, আর খুঁজেই পেলেন না লুচিচ-বারোনি।
অবশেষে পথের দিশা মিলল কাল। কোয়ার্টার ফাইনালে ক্যারোলিনা প্লিসকোভাকে ৬-৪, ৩-৬, ৬-৪ গেমে হারিয়ে যখন শেষ চারে উঠে এলেন র্যা ঙ্কিংয়ের ৭৯ নম্বর খেলোয়াড়। সেমিফাইনালে ওঠেই লুচিচ-বারোনি নিশ্চিত করলেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের চার সেমিফাইনালিস্টের তিনজনেরই বয়স চৌত্রিশের বেশি। সেমিতে উঠেছেন ভেনাস উইলিয়ামসও। সেমিতে তাঁর প্রতিপক্ষ নতুন তারকা কোকো ভ্যান্ডেওয়ে।
তবে সবারই নজর থাকবে দিনের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে। বাংলাদেশ সময় সকাল সোয়া ১০টায় শুরু এ ম্যাচে যে লুকিয়ে আছে পৌরাণিক ফিনিক্স পাখির গল্পের রেশ। এই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনেই জানান দিয়েছিলেন লুচিচ-বারোনি। ১৯৯৮ সালে মার্টিনা হিঙ্গিসকে সঙ্গী করে যখন দ্বৈতের শিরোপা জিতছেন, এই ক্রোয়াট বিস্ময়ের বয়স তখন মাত্র ১৫ বছর ১০ মাস ২১ দিন। সবচেয়ে কম বয়সে অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জয়ের রেকর্ড সেটি। পরের গ্র্যান্ড স্লামেই (ফ্রেঞ্চ ওপেন) দ্বৈতের শিরোপা জিতে সেরেনাও জানান দিয়েছিলেন প্রস্তুত তিনিও। এরপর তো উইম্বলডনে দুজনের সেই ম্যাচ।
গ্র্যান্ড স্লামে আর দেখা হয়নি দুজনের। একদিকে যখন মেয়েদের টেনিসে একের পর এক রেকর্ড গড়েছেন সেরেনা, অন্যদিকে বিস্মৃতির অতলে হারিয়ে গেছেন বারোনি। পারিবারিক হেনস্তা আর অর্থকষ্টে টেনিস খেলাটাই ছেড়ে দিয়েছিলেন। ২০০৮ সালে নতুন করে ফিরেও সম্ভাবনার সঙ্গে মেলাতে পারেননি নিজের পারফরম্যান্স। ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মতো গ্র্যান্ড স্লামের সেমিফাইনালে উঠে ভোলেননি সেই দিনগুলোর কথা, ‘একদিন আমার সঙ্গে যা যা হয়েছে, তা নিয়ে অনেক লম্বা এক গল্প বলব। তবে কোনো দিন ভাবিনি এখানে আসতে পারব।’
অভাবনীয় এ অর্জনটাই ১৮ বছর বয়ে বেড়ানোর কষ্টটা ভোলার সাহস দিচ্ছে তাঁকে, ‘এটাই আমার জীবনকে পূর্ণতা দিল। এত খারাপ কিছুর পরও এই জীবন মেনে নেওয়া যাচ্ছে এখন।’ রয়টার্স, নিউইয়র্ক টাইমস।

default image

সেই থিমের কাছে নাদালের হার

default image

বালকদের ফাইনালে বাংলাদেশ

বড় একটা ধাক্কাই খেলেন শারাপোভা

বড় একটা ধাক্কাই খেলেন শারাপোভা

default image

পাকিস্তান ও ভুটানকে হারাল বাংলাদেশ

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
1 2 3 4
 
আরও মন্তব্য

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

default image

ফ্রেঞ্চ ওপেনে নেই ফেদেরার-শারাপোভা

ফেদেরার নিজে থেকেই সরে গেছেন ফ্রেঞ্চ ওপেন থেকে। বলেছেন, বিশ্রাম দরকার তাঁর।...
এই তো ক্লে কোর্টের নাদাল!

এই তো ক্লে কোর্টের নাদাল!

২৮ মে শুরু হবে ক্লে কোর্টের গ্র্যান্ড স্লাম ফ্রেঞ্চ ওপেন। তাতে সম্ভাব্য...
default image

ফারুক-প্রীতি চ্যাম্পিয়ন

স্বাধীনতা দিবস টেনিসের বালক এককের অনূর্ধ্ব-১৮ গ্রুপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ফারুক...
‘প্রতারক’ শারাপোভাকে হারালেন বুশার

‘প্রতারক’ শারাপোভাকে হারালেন বুশার

বেশি বকবক না করে খেলায় মনোযোগ দেওয়ার জন্য ইউজিনি বুশারকে...
দেশের বাইরেও কিউই-বধ

দেশের বাইরেও কিউই-বধ

চালের মজুত কমছে আমদানিই ভরসা

চালের মজুত কমছে আমদানিই ভরসা

default image

নিজের বিয়ে ঠেকাল ভোলার স্কুলছাত্রী

স্মার্ট কার্ড নিয়ে বহুমুখী সমস্যা

স্মার্ট কার্ড নিয়ে বহুমুখী সমস্যা

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
© স্বত্ব প্রথম আলো ১৯৯৮ - ২০১৭
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভেনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা ১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ইমেইল: info@prothom-alo.info