মুশফিকদের স্বস্তির জয়

ক্রীড়া প্রতিবেদক | আপডেট: | প্রিন্ট সংস্করণ

আউট হয়ে গেলেন রাজশাহী কিংসের সাব্বির। বরিশাল বুলস অধিনায়ক মুশফিকের সঙ্গে বোলার এমরিতের উদ্‌যাপন l শামসুল হকটানা ছয় ম্যাচ হারের পর অবশেষে জয়ের দেখা পেয়েছেন মুশফিকরা। কাল রাজশাহী কিংসকে বরিশাল বুলস হারিয়েছে ১৭ রানে।
টানা হারের পর জয়টা স্বস্তি দিয়েছে। তবে আক্ষেপও আছে বরিশাল বুলস অধিনায়ক মুশফিকের, ‘স্বস্তি তো অবশ্যই। আমরা শেষ চারে যাওয়ার দল ছিলাম, নিজেদের প্রমাণ করার অনেক কিছু ছিল। কিছু খেলোয়াড় ভালোও খেলছিল। শুধু দল হিসেবে ভালো করতে পারিনি। আজ (কাল) সেটা করতে পেরেছি। আর একটা ম্যাচ আছে আমাদের। সেটি ভালোভাবে শেষ করাই লক্ষ্য আমাদের।’
মুশফিকদের জয়ে অবশ্য চিন্তা বেড়েছে রাজশাহীর। টানা দুই ম্যাচ হেরে প্লে-অফের হিসাবটা কঠিন হয়ে গেছে তাদের। যদিও ১১ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে কাল পর্যন্ত পয়েন্ট তালিকায় চারেই আছে রাজশাহী। তবে তাদের ম্যাচ বাকি আছে আর একটি। আর ঘাড়ে নিশ্বাস ফেলা রংপুর রাইডার্সের এখনো ম্যাচ বাকি দুটি।
ঢাকায় ফেরার পর প্রায় প্রতিদিনই লো-স্কোরিং ম্যাচ দেখেছে বিপিএল। কাল বরিশালের দেওয়া ১৬১ রান তাই বিশাল বাধা হয়ে গেছে রাজশাহীর। সামিত প্যাটেলের ৫১ বলে ৬২ রান যা একটু আশা জুগিয়েছে তাদের। অবশ্য ১২ বলে ৩৩ রানের সমীকরণটা কঠিন হলেও অসম্ভব ছিল না রাজশাহীর। প্যাটেল তখনো উইকেটে। কিন্তু পেসার রায়াদ এমরিতের করা ১৯তম ওভারেই সব আশা শেষ হয়ে যায় রাজশাহীর। ৪ বলের মধ্যেই ফিরে যান প্যাটেল ও ফরহাদ রেজা। এর আগে এমরিতের শিকার হয়েছেন সাব্বির রহমানও। রাজশাহীর ‘আইকন’ খেলোয়াড় পরশু কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের বিপক্ষে আউট হয়েছেন ৮ রানে, কালও তাই। সাব্বিরের অনুজ্জ্বল পারফরম্যান্সের প্রভাব যেন পড়েছে পুরো দলেই।
ফজলে মাহমুদ তাঁর ক্যারিয়ারের তৃতীয় টি-টোয়েন্টি খেললেন কাল। নিজের বিপিএল অভিষেকে আউট হয়েছেন শূন্য রানে। কাল রাজশাহীর বিপক্ষেও ফজলের শুরুটা হয়েছে নড়বড়ে। তবে দ্রুত জড়তা কাটিয়ে ব্যাটিংয়ে স্বচ্ছন্দ হয়েছেন বরিশালের এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। ডেভিড ম্যালানের সঙ্গে গড়েছেন দারুণ এক জুটি। ম্যালান-ফজলের সুবাদেই বরিশাল পেয়েছে চ্যালেঞ্জিং স্কোর। দুজনের দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ৭১ বলে ১০০ রানই বরিশাল ইনিংসের উজ্জ্বলতম দিক। মেহেদী হাসান মিরাজের ষষ্ঠ ওভারে দুবার ক্যাচ তুলে দিয়েও বেঁচে গেছেন ফজলে। ৬ ও ১২ রানে ‘জীবন’ পাওয়া বরিশালের ব্যাটসম্যান করেছেন ৪৩ বলে ৪৩ রান। রাজশাহীর বোলারদের ওপর সবচেয়ে বেশি চড়াও হয়েছেন ম্যালান। ইংলিশ ওপেনার করেছেন ৩৩ বলে ৫৬ রান। তবে ম্যালান যেভাবে হেলেদুলে দৌড়ে রানআউট হয়েছেন, সেটি ছিল বেশ দৃষ্টিকটু। শেষ ওভারে বরিশাল তুলেছে ১৭ রান। শেষ পর্যন্ত তারা জিতেছে ১৭ রানেই।
কুমিল্লার মতোই এখন মুশফিকদের জয় মানে বরিশাল সমর্থকদের আফসোস। জিততে থাকা দলটা মাঝে খেই হারিয়ে না ফেললে টুর্নামেন্টে তাদের গল্পটা অন্য রকম হতেই পারত।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
বরিশাল বুলস: ২০ ওভারে ১৬১/৪ (মেন্ডিস ৬, ম্যালান ৫৬, ফজলে ৪৩, মুশফিক ৮, পেরেরা ২৯*, শাহরিয়ার ১৬*; সামি ১/১৬, মিরাজ ১/৩৪, ফরহাদ ১/৩২, স্যামি ০/২৮, ফ্র্যাঙ্কলিন ০/২১, নাজমুল ০/২১, প্যাটেল ০/৭)।
রাজশাহী কিংস: ২০ ওভারে ১৪৪/৭ (মুমিনুল ১৬, নুরুল ১২, সাব্বির ৮, প্যাটেল ৬২, রকিবুল ৯, ফ্র্যাঙ্কলিন ১৮, স্যামি ১১*, ফরহাদ ৪, মিরাজ ০*; তাইজুল ০/২৯, কামরুল ১/২৭, মনির ১/১৭, এমরিত ৩/২৭, এনামুল ১/৬, পেরেরা ১/৩৫)।
ফল: বরিশাল বুলস ১৭ রানে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ: রায়াদ এমরিত।

 

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনি কি পরিচয় গোপন রাখতে চান
আমি প্রথম আলোর নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
View Mobile Site
   
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ই-মেইল: info@prothom-alo.info
 
topউপরে