সব

গুলশান হামলার ১০০ দিন

আত্মজিজ্ঞাসা জরুরি

এ এন এম মনিরুজ্জামান
প্রিন্ট সংস্করণ

দ্বিতীয়ত এটা আমাদের বুঝতে হবে যে এটা একটা জাতীয় সমস্যা, জাতীয় নিরাপত্তাজনিত সমস্যা। বিষয়টিকে সেভাবে চিহ্নিত করে ও বিবেচনায় নিয়ে সংকীর্ণ দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে সমাধানের পথ খুঁজে বের করতে হবে। এটা করার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে একটা ব্যাপকভিত্তিক সামাজিক সংলাপের দরকার আছে। যেখানে সমাজের সব শ্রেণি-পেশার প্রতিনিধি থাকবেন। কারণ, সমস্যাটা শুধু দলের বা সরকারের নয়। এটি রাষ্ট্রীয় সমস্যা এবং সেভাবেই অনুধাবন করতে হবে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বর্তমানে যেসব পদক্ষেপ নিচ্ছে, আমরা তার সাময়িক সুফল পাচ্ছি। সুফলগুলো সাময়িক। এটাকে বেশি দিন ধরে রাখার জন্য যে ধরনের কাউন্টার টেররিজম আর্কিটেকচার জাতীয় পর্যায়ে থাকা দরকার, সেটা এখন পর্যন্ত আমরা তৈরি করতে পারিনি। মনে রাখতে হবে, সন্ত্রাসবাদ বা জঙ্গি হামলা একটা প্রক্রিয়ার অংশ। প্রক্রিয়াগুলোকে যদি বের করে পুরোপুরি বিশ্লেষণ না করি, তাহলে শুধু শেষ পর্যায়ে পদক্ষেপ নিলে সুফল পাব না। এটা কোনো পুলিশি সমস্যা নয়; এটা একটা ব্যাপকভিত্তিক সামাজিক ও মনস্তাত্ত্বিক সমস্যা। সেদিকে আমাদের দৃষ্টি দিতে হবে। রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে একটা দীর্ঘমেয়াদি কৌশল ও পরিকল্পনা থাকতে হবে। যেটার ভেতরে শুধু রাষ্ট্রের কিছু সংগঠন নয়, ব্যাপক ভিত্তিতে সমাজের বিভিন্ন স্তরের সংগঠনের অংশগ্রহণ থাকতে হবে। কিন্তু সে ধরনের কোনো পদক্ষেপ এখন পর্যন্ত আমরা দেখতে পাইনি।

এ বিষয়ে গভীরভাবে গবেষণার প্রয়োজন আছে, তথ্য-উপাত্তের প্রয়োজন আছে। কেবল ওপরে ওপরে মলম লাগিয়ে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করতে গেলে হয়তো সাময়িকভাবে সমাধান হবে। কিন্তু সমস্যা থেকে যাবে। ২০০৭ সালে শায়খ আবদুর রহমান ও বাংলা ভাইসহ জেএমবির শীর্ষস্থানীয় নেতাদের ফাঁসির পর সংগঠনটি স্তিমিত হয়ে গিয়েছিল। তারা এখন নতুন আকারে, আরও প্রবল আকারে এসে হানা দিয়েছে। তাই বলতে চাই, কেবল কাউন্টার র‍্যাডিকালাইজেশন স্ট্র্যাটেজি থাকলে চলবে না, আমাদের এখানে ডি-র‍্যাডিকালাইজেশনের খুব প্রয়োজন আছে। গুলি করে মেরে এটা বন্ধ করা যাবে না। তাদের ওই উগ্র মতাদর্শ থেকে ফিরিয়ে এনে সমাজে পুনঃপ্রবেশ করার পথ খুঁজে বের করতে হবে।

আমাদের জেলখানাগুলোর ওপর সঠিক নজর দেওয়া হচ্ছে না। বিভিন্ন সমীক্ষায় আমরা দেখতে পাচ্ছি, বিভিন্ন কারাগারেও জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ  হওয়ার ঘটনা ঘটছে। এমনকি জেলখানার ভেতরে বসে জঙ্গিনেতারা বিভিন্ন পন্থায় বাইরে হামলার পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন করিয়েছেন, এমন ঘটনাও আছে। মধ্যম বা নিম্ন পর্যায়ের জঙ্গি ধরা পড়ে জেলখানায় গিয়ে কয়েক বছর পর বড় জঙ্গি হয়ে বেরিয়ে আসে। কিছু অনুসারীও নিয়ে আসে। এসব বন্ধ করতে গেলে কারাগারগুলোর ওপর নজর দিতে হবে। কারাগারেও ডি-র‍্যাডিক্যালাইজেশনের ব্যবস্থা করতে হবে। বিভিন্ন দেশে এ ব্যবস্থা আছে।

আরেকটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো সাইবার র‍্যাডিক্যালাইজেশন। ইন্টারনেটের মাধ্যমে যে যোগাযোগগুলো হচ্ছে তার মাধ্যমে যে ধরনের উগ্র মতাদর্শ প্রচার হচ্ছে, তার শিকার হচ্ছে বর্তমান শহুরে, মধ্যবিত্ত, উচ্চবিত্তের তরুণেরা। এই পথগুলো আমাদের চিহ্নিত করতে হবে। সাইবার র‍্যাডিক্যালাইজেশন বন্ধ করার জন্য যে পথগুলো আছে, সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। বর্তমানে যে ধরনের গোয়েন্দা নজরদারি করা হয়, সেটা অনেক ক্ষেত্রেই ‘পলিটিক্যাল সার্ভিল্যান্স’। এ ধরনের গোয়েন্দা নজরদারি দিয়ে ইন্টারনেটে জঙ্গি কার্যক্রম বন্ধ করা যাবে না। এ জন্য বহুমুখী কর্মকৌশল ও প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে হবে। যেখানে বিভিন্ন ধরনের কাউন্টার ন্যারিটিভ দিতে পারব।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যখন জঙ্গিবিরোধী তাৎক্ষণিক অভিযান পরিচালনা করে, তখন একটা প্রবণতা থাকে আইন লঙ্ঘনের। এর একটা স্বল্পমেয়াদি ফল হয়তো পাওয়া যায়। কিন্তু এ ক্ষেত্রে আইন মানার বিষয়ে বেশি সতর্ক থাকা উচিত, কারণ এটাই জঙ্গিদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তফাত।

এ ছাড়া আমাদের দেশে একধরনের প্রবণতা লক্ষ করি যে আমরা অল্পতেই তুষ্টি লাভ করতে চাই। বর্তমানে আমরা একই ধরনের আত্মতুষ্টির দিকে এগোচ্ছি বলে আমার ভয় হচ্ছে। মনে রাখতে হবে যে গোপন জঙ্গি সংগঠনগুলোর সাংগঠনিক কাঠামো ঢিলেঢালা থাকে। এক-দুজন নেতাকে ধ্বংস করলে এরা নিঃশেষ হয় না।

মেজর জেনারেল (অব.) এ এন এম মনিরুজ্জামান: প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ পিস অ্যান্ড সিকিউরিটি স্টাডিজ।

আরও পড়ুন

কুমিল্লা নির্বাচন থেকে আমরা কী শিক্ষা নিতে পারি?

কুমিল্লা নির্বাচন থেকে আমরা কী শিক্ষা নিতে পারি?

default image

ডিজিটাল অর্থনীতির বাজেট চাই

জঙ্গি ভাবাদর্শ থেকে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ কই?

জঙ্গি ভাবাদর্শ থেকে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ কই?

default image

১২ জনকে তুলে নিয়ে যাওয়া

মন্তব্য ( ১ )

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
1 2 3 4
 
আরও মন্তব্য

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

default image

জঙ্গিবিরোধী অভিযানে চাই আরও সতর্কতা র‌্যাব কর্মকর্তার মৃত্যু

সব মৃত্যুই শোকের। কিন্তু কিছু কিছু মৃত্যু বৃহত্তর সমাজ ও রাষ্ট্রকেও নাড়া...
থ্যাচারের কৌশল নিয়েছেন ট্রাম্প

রাজনীতি থ্যাচারের কৌশল নিয়েছেন ট্রাম্প

ইতিহাসবিদেরা হয়তো একসময় মার্কিন অভিনেতা অ্যালেক ব্যাল্ডউইনকে মার্কিন...
default image

চিঠিপত্র ঢাকাকেন্দ্রিক পরীক্ষা

যানজটের শহর ঢাকা। কেন্দ্রমুখী প্রবণতা ঢাকা শহরকে দিন দিন অসহনীয় করে তুলছে।...
default image

কর্তৃত্ববাদ আমরা যেমন, তেমন নেতাই পাই

চরিত্রটিকে মনে পড়ে? খেপে গেলেও বুক থাবড়ায়, ডর দেখাতেও থাবা মারে বুকে। তার...
তাসের ঘরের মতো ধসে পড়ে ভবনটি

তাসের ঘরের মতো ধসে পড়ে ভবনটি

ভবনে আগের দিনই ফাটল দেখা যায়। এ কারণে পোশাক কারখানার শ্রমিকদের ছুটি দেওয়া হয়।...
‘আইপি লগ’ কমপক্ষে এক বছর সংরক্ষণে বিটিআরসির নির্দেশ

সাইবার অপরাধ ‘আইপি লগ’ কমপক্ষে এক বছর সংরক্ষণে বিটিআরসির নির্দেশ

দেশের সব ইন্টারনেট সেবাদানকারী (আইএসপি) প্রতিষ্ঠানকে ‘আইপি লগ’ কমপক্ষে এক বছর...
বার্নাব্যুর মঞ্চ দখল করে নিলেন মেসি

বার্নাব্যুর মঞ্চ দখল করে নিলেন মেসি

লিগ টেবিলের সুবিধাজনক জায়গায় দাঁড়িয়েই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনার বিপক্ষে...
দুই মামলারই সাক্ষ্য থেমে আছে

রানা প্লাজা ধসের ৪বছর দুই মামলারই সাক্ষ্য থেমে আছে

বিশ্বের সবচেয়ে বড় শিল্পভবন দুর্ঘটনায় ১ হাজার ১৩৬ জন শ্রমিকের মৃত্যুর বিচার...
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
© স্বত্ব প্রথম আলো ১৯৯৮ - ২০১৭
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভেনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা ১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ইমেইল: info@prothom-alo.info