সব

সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলুন

আবার জঙ্গি তৎপরতা

প্রিন্ট সংস্করণ

গত বছরের ১ জুলাই ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছিল এই সংগঠনটিই, যারা ইসলামিক স্টেট (আইএস) নামের মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক বহুজাতিক জঙ্গি সংগঠনের মতাদর্শ ও সন্ত্রাস-কৌশল অনুসরণ করে। ওই হামলার পর জঙ্গিবাদের ব্যাপারে সরকারের কঠোর অবস্থান গ্রহণ ও দেশব্যাপী ব্যাপক জঙ্গি দমন অভিযান শুরু হলে সংগঠনটির বেশ কিছু সদস্য নিহত হন। ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কয়েকটি অভিযানে তামিম চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজন নেতা নিহত ও গ্রেপ্তার হওয়ার খবরে এমন একটা ধারণা জন্মে যে নব্য জেএমবির নেতৃত্ব ছত্রভঙ্গ ও ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তারপর আর কোনো জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটেনি বলে সংশ্লিষ্ট মহলে কিছুটা স্বস্তি ফিরে এসেছিল বলেও খবর পাওয়া যায়।

কিন্তু সে রকম স্বস্তির অবকাশ যে বাস্তবে নেই, তা গত কয়েক দিনের কয়েকটি ঘটনা থেকে স্পষ্ট হয়ে উঠল। বিশেষভাবে লক্ষণীয়, শুক্রবার দুপুরে ঢাকার আশকোনায় র‌্যাব সদর দপ্তরের ফোর্সেস ব্যারাকে আত্মঘাতী হামলার ব্যর্থ চেষ্টা। র‌্যাবের মতো চৌকস বাহিনীর সদর দপ্তরে জঙ্গিদের হামলা চালানোর পরিকল্পনা স্পষ্টভাবেই ইঙ্গিত করছে যে তারা আগের চেয়ে অনেক বেশি উচ্চাভিলাষী হয়ে উঠেছে এবং তাদের হুমকির বাইরে আর কোনো কিছুই থাকছে না। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের ওপর বিচ্ছিন্নভাবে চোরাগোপ্তা হামলার চেষ্টা আগেও হয়েছে, কিন্তু কোনো বাহিনীর সদর দপ্তরকে লক্ষ্যবস্তু করা বাংলাদেশে এটাই প্রথম।

জঙ্গি দমন অভিযান ও গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত থাকা অবস্থায় কথিত নব্য জেএমবি বা অন্য জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর গোপন তৎপরতা কীভাবে ও কিসের জোরে চলতে পারছে, তা গভীরভাবে জানার চেষ্টা করা দরকার। জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর অর্থায়ন কখনোই পুরোপুরি বন্ধ হয়নি, তাদের জনবল সংকটও কখনো স্থায়ী হয়নি। এ দুটো বিষয়ের পেছনে কিছু বাস্তবিক প্রণোদনা
আছে; উগ্র, অসহিষ্ণু ও জবরদস্তিমূলক ধর্মীয় মতাদর্শের সঙ্গে রাজনীতির যোগ এবং তার প্রতি কিছুসংখ্যক তরুণ-যুবকের তীব্র আকর্ষণ অস্বীকার করার সুযোগ নেই। কঠোর দমন-অভিযান,  গ্রেপ্তার-বিচার-শাস্তি প্রদান ইত্যাদি অবশ্যই আরও জোরদার করতে হবে; কিন্তু শুধু এভাবেই এ গভীর সমস্যার সমাধান মিলবে না। এ জন্য ব্যাপক ও গভীর সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলাও জরুরি।

default image

সরকারকে জরুরি ভিত্তিতে পদক্ষেপ নিতে হবে

default image

সত্য উদ্‌ঘাটন করে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিন

default image

পোশাকশ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠা আর কত দূর?

default image

স্টেন্টের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য মানতেই হবে

মন্তব্য ( ১ )

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
1 2 3 4
 
আরও মন্তব্য

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

default image

আর্সেনিকের বিপদ জনস্বাস্থ্যের বড় হুমকির প্রতি সরকার কেন উদাসীন?

যে দেশের ৩ কোটি ২০ লাখ মানুষ আর্সেনিক বা সেঁকো বিষের ঝুঁকিপূর্ণ পানি পান...
default image

বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম নগরীতে জলাবদ্ধতা সিটি করপোরেশনকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে

নিষ্কাশন (ড্রেনেজ) ব্যবস্থা বলে তেমন কিছু যে চট্টগ্রাম শহরে কার্যকর নেই, তা...
default image

দুর্গত এলাকা ঘোষণা করা হোক হাওরে মানবিক বিপর্যয়

সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, কিশোরগঞ্জ ও নেত্রকোনার হাওরাঞ্চল ভারত থেকে আসা...
default image

আইনজীবীর ভুল, না অন্য কিছু? মেয়রের বিরুদ্ধে পরোয়ানা

জ্ঞাত-আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের মামলায় কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের...
এসএসসির ফল প্রকাশ ৪ মে

এসএসসির ফল প্রকাশ ৪ মে

আগামী ৪ মে (বৃহস্পতিবার) এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে।...
চার সাংসদকে নিয়ে কাদেরের বৈঠক

চার সাংসদকে নিয়ে কাদেরের বৈঠক

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের দুর্বলতা ও সমস্যা চিহ্নিত করতে ঢাকার আশপাশের...
চলনবিলে তলিয়ে যাচ্ছে পাকা ধান

পাকা ধান ঘরে তুলতে প্রশাসনের মাইকিং চলনবিলে তলিয়ে যাচ্ছে পাকা ধান

দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জলাভূমি হাওরে অকালবন্যায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির পর এবার...
ভাস্কর্য নিয়ে যাতে অরাজক পরিস্থিতি না হয়: আইনমন্ত্রী

ভাস্কর্য নিয়ে যাতে অরাজক পরিস্থিতি না হয়: আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণের ভাস্কর্য সরানো হবে কি...
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
© স্বত্ব প্রথম আলো ১৯৯৮ - ২০১৭
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভেনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা ১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ইমেইল: info@prothom-alo.info