সব

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০১৬ ইংরেজি ­ বাংলা­  বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়­  ধর্ম  বিজ্ঞান

বাংলা

দীদার চৌধুরী
প্রিন্ট সংস্করণ

পাঠ্যবই-বহির্ভূত যোগ্যতাভিত্তিক প্রশ্ন

প্রিয় পরীক্ষার্থী, বাংলা বিষয়ের ৫, ৬ ও ৭ নম্বর প্রশ্ন থাকবে তোমার পাঠ্যবইয়ের বাইরে থেকে। প্রশ্নগুলো হবে যোগ্যতাভিত্তিক।

 

নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ৫, ৬ ও ৭ নম্বর প্রশ্নের উত্তর লেখো।

বগুড়া শহর থেকে প্রায় ১৩ কিলোমিটার উত্তরে প্রাচীরঘেরা প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন মহাস্থানগড়। এখানে আছে প্রত্নতাত্ত্বিক জাদুঘর।

মহাস্থানগড় জাদুঘরের পাশেই রয়েছে প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন গোবিন্দভিটা। মাটির ঢিবি খুঁড়ে বের করা হয়েছে প্রাচীন যুগের স্থাপত্য। ঢিবিটি বেশ উঁচু। নিচে আছে করতোয়ার ক্ষীণধারা। একসময়ে বিশাল নদী ছিল করতোয়া। তার গতিও ছিল তীব্র। করতোয়া এখন মৃতপ্রায় নদী। বর্ষাকালে কিছুটা প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে। কিন্তু শীতে হয়ে যায় জীর্ণশীর্ণ।

এটি প্রাচীন বাংলার অন্যতম প্রাচীন নগর পুণ্ড্রবর্ধন। এখানে একদিন রাজা ছিল, রানি ছিল, রাজকন্যা ছিল, ছিল মন্ত্রী, সেনাবাহিনী, প্রহরী। হাতিশালে হাতি ছিল, ঘোড়াশালে ছিল ঘোড়া। করতোয়ার ঘাটে নৌকা ভিড়ত, দেশ-বিদেশের বণিকেরা ব্যবসা করতে আসত, আসত পর্যটকেরা। জনকোলাহলে মুখরিত ছিল এই নগর। পুণ্ড্রবর্ধনকে পুণ্ড্রনগরও বলা হয়। চারদিকে যে উঁচু প্রাচীর, সেটি উত্তর-দক্ষিণে বিস্তৃত। সমতলভূমি থেকে প্রাচীরের উচ্চতা ৪ দশমিক ৫৭ মিটার (১৫ ফুট)। কোনো কোনো জায়গা ১০ দশমিক ৬৭ মিটার (৩৫ ফুট) উঁচু। দুর্গের ভেতরে দুটি মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ আছে। এটি লোকমুখে বৈরাগীর ভিটা নামে অভিহিত। আরও একটি ভিটার নাম পাওয়া যায়, তার নাম খোদাই পাথরভিটা। এখানে ৩ দশমিক ৩৫ মিটার লম্বা একটি বড় পাথর আছে। এই পাথরটির ওজন প্রায় সাড়ে তিন টন। সে জন্য স্থানটির নাম খোদাই পাথরভিটা। মহাস্থানগড় ইতিহাসের এক স্বর্ণপুরী। এর ধাপে ধাপে আমাদের প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শন চাপা পড়ে ছিল। বুকানন হ্যামিল্টন আর আলেকজান্ডার ক্যানিংহাম এ সম্পর্কে সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এখানে জৈনধর্মের কিছু নিদর্শনও পাওয়া গেছে। এখানে আরও আছে বৌদ্ধধর্মের নিদর্শন, হিন্দুধর্মের নিদর্শন আর ইসলামি সভ্যতার নিদর্শন। পুণ্ড্রবর্ধনে এ দেশের সভ্যতার বিচিত্র উপাদান সঞ্চিত আছে।

 

৫। সঠিক উত্তরটি উত্তরপত্রে লেখো।

১। মহাস্থানগড় কোথায় অবস্থিত?

ক. বগুড়া শহর থেকে প্রায় ১৩ কিমি উত্তরে

খ. বগুড়া শহর থেকে ১২ কিমি দক্ষিণে

গ. দিনাজপুর শহর থেকে ১২ কিমি উত্তরে

ঘ. রাজশাহী শহর থেকে ১২ কিমি দক্ষিণে

২। মহাস্থানগড়ে মাটি খুঁড়ে কী বের করা হয়েছে?

ক. স্বর্ণ খ. রুপা গ. প্রাচীন যুগের স্থাপত্য

ঘ. প্রাচীন যুগের স্বর্ণমুদ্রা

৩। কোন নদী শীতে জীর্ণশীর্ণ হয়ে যায়?

ক. কুশিয়ারা গ. গড়াই গ. করতোয়া ঘ. যমুনা

৪। কোনটিকে ইতিহাসের এক স্বর্ণপুরী বলা হয়?

ক. মহাস্থানগড় খ. সোনারগাঁ

গ. লালবাগ কেল্লা ঘ. পানাম নগর

৫। এ দেশের সভ্যতার বিচিত্র উপাদান কোথায় সঞ্চিত আছে?

ক. পুণ্ড্রবর্ধনে খ. জাদুঘরে

গ. চিড়িয়াখানায় ঘ. সোনারগাঁয়ে

 

৬। ছকে কয়েকটি শব্দ এবং শব্দার্থ দেওয়া আছে। উপযুক্ত শব্দটি দিয়ে নিচের বাক্যগুলোর শূন্যস্থান পূরণ করে উত্তরপত্রে লেখো।

শব্দ           অর্থ

প্রত্নতাত্ত্বিক      প্রাচীন কালের বস্তুসামগ্রী

স্থাপত্য           স্থাপনা

প্রাচীর            দেয়াল

ধ্বংসাবশেষ    ধ্বংস হওয়ার পরও যা অবশিষ্ট

প্রাচীন            পুরোনো

বণিক            ব্যবসায়ী

 

ক. মহাস্থান গড়ে অনেক — নিদর্শন পাওয়া গেছে।

খ. — যিনি নির্মাণ করেন, তাঁকে বলা হয় স্থপতি।

গ. মহাস্থানগড়ে প্রাচীন রাজধানীর — পাওয়া গেছে।

ঘ. একসময় করতোয়ার ঘাটে দেশ-বিদেশের — ব্যবসা করতে আসত।

ঙ. লালবাগ কেল্লার চারপাশে — আছে।

 

৭। নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর লেখো।

ক. মহাস্থানগড় কোথায় অবস্থিত? মহাস্থানগড়ে প্রাপ্ত দুটি নিদর্শনের নাম লেখো।

খ. মহাস্থানগড় জাদুঘরের পাশে কী আছে? চারটি বাক্যে ওই স্থানটির বর্ণনা দাও।

গ. প্রাচীন বাংলার অন্যতম প্রাচীন নগর কী নামে পরিচিত ছিল? চারটি বাক্যে প্রাচীন নগরটির বর্ণনা দাও।

 

৫ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

(১) ক. বগুড়া শহর থেকে প্রায় ১৩ কিমি উত্তরে

(২) গ. প্রাচীন যুগের স্থাপত্য

(৩) গ. করতোয়া

(৪) ক. মহাস্থানগড়

(৫) ক. পুণ্ড্রবর্ধনে

 

৬ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক.  মহাস্থানগড়ে অনেক প্রাচীন নিদর্শন পাওয়া গেছে।

খ. স্থাপত্য যিনি নির্মাণ করেন, তাঁকে বলা হয় স্থপতি।

গ. মহাস্থানগড়ে প্রাচীন রাজধানীর ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গেছে।

ঘ. একসময় করতোয়ার ঘাটে দেশ-বিদেশের বণিকেরা ব্যবসা করতে আসত।

ঙ. লালবাগ কেল্লার চারপাশে উঁচু প্রাচীর আছে।

 

৭ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক.

বগুড়া শহর থেকে প্রায় ১৩ কিলোমিটার উত্তরে করতোয়া নদীর তীরে মহাস্থানগড় অবস্থিত। মহাস্থানগড়ে প্রাপ্ত দুটি নিদর্শন হলো:

১। বৌদ্ধধর্ম, হিন্দুধর্ম ও ইসলামি সভ্যতার নিদর্শন ছাড়াও জৈনধর্মের কিছু নিদর্শন। ২। ৩ দশমিক ৩৫ মিটার লম্বা প্রায় সাড়ে তিন টন ওজনের একটি খোদাই পাথর।

খ.

 মহাস্থানগড় জাদুঘরের পাশেই রয়েছে গোবিন্দভিটা। গোবিন্দভিটা একটি প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। টিলার মতো উঁচু এই জায়গার মাটির ঢিবি খুঁড়ে বের করা হয়েছে প্রাচীন যুগের স্থাপত্য। ঢিবিটি বেশ উঁচু। নিচে আছে করতোয়ার ক্ষীণধারা।

গ.

 প্রাচীন বাংলার অন্যতম প্রাচীন নগরটির নাম পুণ্ড্রবর্ধন। পুণ্ড্রবর্ধন পুণ্ড্রনগর নামেও পরিচিত ছিল। প্রাচীন নগর এই পুণ্ড্রনগরের চারদিকের উঁচু প্রাচীরটি উত্তর-দক্ষিণে বিস্তৃত। সমতলভূমি থেকে প্রাচীরের উচ্চতা ৪ দশমিক ৫৭ মিটার। কোনো কোনো জায়গায় ১০ দশমিক ৬৭ মিটার উঁচু। দুর্গের ভেতরে দুটি মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ আছে।

সিনিয়র শিক্ষক

আন-নাফ গ্রিন মডেল স্কুল, ঢাকা

default image

ইংরেজি ২য় পত্র

default image

পৌরনীতি ও নাগরিকতা

default image

ইংরেজি ২য় পত্র

default image

সমাজবিজ্ঞান ১ম পত্র

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
1 2 3 4
 
আরও মন্তব্য

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

default image

জেনে রাখো

সুষম খাদ্যের ৫টি বৈশিষ্ট্য১সুষম খাদ্য অবশ্যই সহজপাচ্য হতে হবে ২একজন মানুষের...
default image

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০১৭ বাংলা

হাতি আর শিয়ালের গল্প প্রিয় শিক্ষার্থী, আজ বাংলা বিষয়ের ‘হাতি আর...
default image

প্রাথমিক বিজ্ঞান

বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তরপ্রিয় শিক্ষার্থী, আজ প্রাথমিক বিজ্ঞানের অধ্যায় ২ থেকে...
default image

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০১৭ প্রাথমিক বিজ্ঞান

বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তরপ্রিয় শিক্ষার্থী, আজ প্রাথমিক বিজ্ঞান বিষয়ের অধ্যায়...
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
© স্বত্ব প্রথম আলো ১৯৯৮ - ২০১৭
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভেনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা ১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ইমেইল: info@prothom-alo.info