সব

এক দিনে পাঁচ রেকর্ড ডিএসইতে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট সংস্করণ

.‘সূচক নিয়ে ভয়ের কিছু নেই। লেনদেন নিয়েও উদ্বেগের কিছু নেই।’ গত বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করে এমন দাবিই করেছেন দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) নেতারা। এরপর গত দুই কার্যদিবসে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১৩৬ পয়েন্ট বেড়েছে। লেনদেন ছাড়িয়েছে ২ হাজার ১০০ কোটি টাকা।
ঢাকার বাজারে সূচক, হাতবদল হওয়া শেয়ারের সংখ্যা ও বাজার মূলধন মিলিয়ে পাঁচটি রেকর্ড হয়েছে গতকাল সোমবার। প্রধান সূচক ডিএসইএক্স, বাছাই সূচক ডিএস-৩০, শরিয়াহভিত্তিক সূচক ডিএসইএস তিনটি সূচকই গতকাল দিন শেষে সর্বোচ্চ অবস্থানে পৌঁছেছে। পাশাপাশি বাজার মূলধন ও হাতবদল হওয়া শেয়ারের সংখ্যায় সর্বোচ্চ অবস্থানের রেকর্ড হয়েছে গতকাল। সব মিলিয়ে গতকাল দিন শেষে শেয়ারবাজারে পাঁচ রেকর্ড হয়েছে।
বাজার-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, গত দুই দিনের সূচকের বড় ধরনের উত্থানে মুখ্য ভূমিকা ছিল তালিকাভুক্ত ব্যাংকের শেয়ারের। ব্যাংক ছাড়াও বড় মূলধনি কোম্পানির শেয়ারের দরবৃদ্ধিও সূচকের বড় উল্লম্ফনে সহায়তা করেছে।
সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬৭ পয়েন্ট বা প্রায় সোয়া ১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৬৭০ পয়েন্টে। ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি এই সূচকটি চালু হওয়ার পর এটিই সর্বোচ্চ অবস্থান। যেহেতু ডিএসইএক্স সূচকটি সর্বোচ্চ পর্যায়ে উঠেছে তাই সূচকের উল্লম্ফন মানেই প্রধান সূচকটির নিত্যনতুন রেকর্ড।
ডিএসইতে তালিকাভুক্ত বাছাই করা ৩০ কোম্পানির সমন্বয়ে গঠিত ডিএস-৩০ সূচকটি গতকাল দিন শেষে ১৩ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ২৫ পয়েন্টের সর্বোচ্চ অবস্থানে দাঁড়িয়েছে। এ সূচকটিও চালু হয়েছিল ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি। চালু হওয়ার পর গতকাল এটি সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠেছে।
একইভাবে ২০১৪ সালের ২০ জানুয়ারি চালু হওয়া শরিয়াহভিত্তিক ডিএসইএস সূচকটি গতকাল দিন শেষে ১১ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ২৯৮ পয়েন্টের সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠেছে। এ ছাড়া গতকাল দিন শেষে বাজার মূলধন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৭৫ হাজার ৫১২ কোটি টাকার সর্বোচ্চ অবস্থানে। আর সোমবার ডিএসইতে ৭০ কোটি ৩৪ লাখ ২৫ হাজার ১২৩টি শেয়ারের হাতবদল হয়, এটিই ডিএসইতে এক দিনে সর্বোচ্চসংখ্যক শেয়ারের হাতবদলের রেকর্ড।
ঢাকার বাজারে গতকাল দিন শেষে লেনদেনের পরিমাণ ছিল ২ হাজার ১৮১ কোটি টাকা। ২০১০ সালের ৬ ডিসেম্বরের পর এটিই ঢাকার বাজারে সর্বোচ্চ লেনদেন। তবে ডিএসইতে এখন পর্যন্ত রেকর্ড লেনদেনের পরিমাণটি ৩ হাজার ২৫ কোটি টাকার। ২০১০ সালের ৫ ডিসেম্বর সর্বোচ্চ লেনদেনের এই রেকর্ড হয়েছিল। ওই রেকর্ড লেনদেনের পর ২০১০ সালের ডিসেম্বরেই বাজারে ধস নেমেছিল।
মার্চেন্ট ব্যাংক আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্টসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গতকালের বাজারে সূচক বৃদ্ধি ও লেনদেনে নায়কের অবস্থানে ছিল ব্যাংকের শেয়ার। এদিন দরবৃদ্ধিরও শীর্ষে ছিল এই খাতটি। এই খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দাম গড়ে প্রায় সাড়ে ৪ শতাংশ করে বেড়েছে। ডিএসইর মোট লেনদেনের মধ্যে ৫০০ কোটি টাকা বা ২৩ দশমিক ৫ শতাংশই ছিল ব্যাংক খাতের।
ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী, ঢাকার বাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংক খাতের ৩০ কোম্পানির মধ্যে ২৮টিরই দাম বেড়েছে। এর বাইরে একটির দাম ছিল অপরিবর্তিত আর একটির দাম কমেছে। দরবৃদ্ধির শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে ৫টিই ছিল ব্যাংক। তার মধ্যে শীর্ষে ছিল ইসলামী ব্যাংক। এদিন ইসলামী ব্যাংকের প্রতিটি শেয়ার ৩ টাকা ৮০ পয়সা বা প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪২ টাকা ৭০ পয়সায়।
৫ জানুয়ারি ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনায় বড় ধরনের রদবদল ঘটে। ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদেও পরিবর্তন আসে। ওই দিন কোম্পানিটির শেয়ারের বাজারমূল্য ছিল ৩০ টাকা। পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আসার পর থেকে শেয়ারবাজারে ইসলামী ব্যাংকের দাম বাড়তে শুরু করে। মাত্র ১১ কার্যদিবসে ব্যাংকটির শেয়ারের দাম প্রায় ১৩ টাকা বা ৪৩ শতাংশ বেড়েছে।
এদিকে শেয়ারবাজারের তেজিভাবের মধ্যে গত রোববার অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি ২০২০ সালের মধ্যে একটি শক্তিশালী পুঁজিবাজার সৃষ্টি হবে। যেখান থেকে আমরা বিভিন্ন বিনিয়োগে আগ্রহ নিতে পারি। হ্যাঁ, মাত্র তিন বছর বাকি। এই তিন বছরেই হবে বলে আমার বিশ্বাস।’
অর্থমন্ত্রীর বক্তব্য গতকালের বাজারকে আরও তেজি করে তোলে। গতকালও রাজধানীর মতিঝিল ও দিলকুশার একাধিক ব্রোকারেজ হাউস ঘুরে ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাজারে প্রতিদিনই নতুন টাকা ঢুকছে। দেশের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীদের একটি বড় অংশও এখন শেয়ারবাজারমুখী। পাশাপাশি নিষ্ক্রিয় বিনিয়োগকারীদের অনেকে সক্রিয় হয়েছেন। নতুন করে বাজারে টাকা খাটাচ্ছেন।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচকটি গতকাল ২১৭ পয়েন্ট বা সোয়া ১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৫৭০ পয়েন্টে। দিন শেষে সেখানকার বাজারে লেনদেনের পরিমাণ ছিল ১২০ কোটি টাকা, যা আগের দিনের চেয়ে ২০ কোটি টাকা বেশি।
বেসরকারি ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোহাম্মদ মুসা বলেন, ‘এখন পর্যন্ত বাজার ভয় পাওয়ার মতো অবস্থানে পৌঁছেনি। তবে যেভাবে বাজারে শেয়ারের দাম দ্রুত বেড়ে চলেছে, সে ধারা অব্যাহত থাকলে তাতে ঝুঁকির মাত্রা অনেক বেড়ে যাবে। ১৯৯৬ ও ২০১০ সালের দুই দফা বাজার-ধসের আগে আমরা বাজারের যে গতি দেখেছি, এবারও সে ধরনের গতি দেখা যাচ্ছে। তাই নতুন করে যাঁরা বাজারে ঝুঁকছেন, শেয়ার বাছাই ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে তাঁদের সতর্ক হওয়া উচিত।’

বকেয়া নিয়ে নতুন জটিলতা

বকেয়া নিয়ে নতুন জটিলতা

বন্ডের সিদ্ধান্ত আগামী বৈঠকে

বন্ডের সিদ্ধান্ত আগামী বৈঠকে

default image

সেন্ট্রাল ফার্মার মালিকানা কিনছে আলিফ গ্রুপ

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
1 2 3 4
 
আরও মন্তব্য

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

default image

আবাসন খাতের জন্য বিশেষ তহবিল চান বাণিজ্যমন্ত্রীও

দেশের আবাসন খাতের উন্নয়নের জন্য বিশেষ তহবিল করার পক্ষে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল...
আইডিএলসির মুনাফা বেড়েছে ২২ শতাংশ

আইডিএলসির মুনাফা বেড়েছে ২২ শতাংশ

২০১৬ সালে ১৭৮ কোটি টাকা নিট মুনাফা করেছে আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইডিএলসি ফিন্যান্স...
ঢাকা অ্যাপারেল সামিট বর্জন করছে পাঁচ ব্র্যান্ড

ঢাকা অ্যাপারেল সামিট বর্জন করছে পাঁচ ব্র্যান্ড

তৈরি পোশাকশিল্পের মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর ঢাকা অ্যাপারেল সামিট বর্জন করছে...
এই রায় একটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাক: ক্যাথরিন মাসুদ

এই রায় একটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাক: ক্যাথরিন মাসুদ

মানিকগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় তারেক মাসুদ, মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হওয়ার ঘটনায়...
বাবুলকে গ্রেপ্তারের মতো প্রমাণ পাওয়া যায়নি: আইজিপি

বাবুলকে গ্রেপ্তারের মতো প্রমাণ পাওয়া যায়নি: আইজিপি

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক বলেন, বাবুল আক্তারকে গ্রেপ্তার...
দুধ ও মাংসের উৎপাদন বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি

দুধ ও মাংসের উৎপাদন বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি

গত পাঁচ বছরে দেশে দুধ ও মাংসের উৎপাদন দ্বিগুণেরও বেশি বেড়েছে। ডিমের উৎপাদন...
নারায়ণগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় আজ বুধবার সন্ধ্যায় পুলিশের সঙ্গে...
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
© স্বত্ব প্রথম আলো ১৯৯৮ - ২০১৭
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভেনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা ১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ইমেইল: info@prothom-alo.info