বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরামের সভা আজ শুরু

উন্নয়ন কৌশল ও সুশাসন আলোচনা প্রাধান্য পাবে

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: | প্রিন্ট সংস্করণ

দাতাদের কাছে আরও উন্নয়ন-সহযোগিতা চাইবে বাংলাদেশ। তাই দাতা দেশ ও সংস্থার প্রতিনিধিদের সামনে ভবিষ্যৎ উন্নয়ন পরিকল্পনা তুলে ধরা হবে। অন্যদিকে অর্থ খরচে দুর্নীতি হ্রাস ও প্রাতিষ্ঠানিক সুশাসন প্রতিষ্ঠার অগ্রগতি জানতে চাইবেন দাতারা।
আজ রোববার শুরু হচ্ছে দুই দিনব্যাপী বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরামের (বিডিএফ) সভা। প্রায় ছয় বছর পর অনুষ্ঠেয় বিডিএফ সভায় উন্নয়ন কৌশল বা পরিকল্পনা আর সুশাসন নিয়ে আলোচনা প্রাধান্য পাবে বলে মনে হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর উদ্বোধন করবেন। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ ইআরডি এর আয়োজক। বাংলাদেশে কার্যরত দাতাদের ফোরাম স্থানীয় পরামর্শক গোষ্ঠী (এলসিজি) এ সভায় দাতাদের পক্ষে সমন্বয় করছে।
দাতাদের সামনে সুশাসনের বিষয়টি কীভাবে মোকাবিলা করবে বাংলাদেশ—এমন প্রশ্নের জবাবে গতকাল সংবাদ সম্মেলনে ইআরডি সচিব মোহাম্মদ মেজবাহউদ্দিন বলেন, ‘সুশাসন প্রতিষ্ঠায় বেশ উন্নতি হয়েছে। তবে এখনো কাঙ্ক্ষিত পর্যায়ে পৌঁছাতে পারিনি। সুশাসন নিয়েই একটি কর্ম অধিবেশন থাকবে।’
সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ৩১ লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকার প্রয়োজন হবে। এর ২৪ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকা আসবে বেসরকারি খাত থেকে। সরকার বিনিয়োগ করবে ৭ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা। বিডিএফ সভায় দাতা প্রতিনিধিদের সামনে এ পরিকল্পনাটি তুলে ধরা হবে। এ ছাড়া টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য বা এসডিজির সঙ্গে কীভাবে বাংলাদেশের উন্নয়ন পরিকল্পনা সমন্বয় করা হচ্ছে, সেই তথ্য জানানো হবে দাতাদের। উদ্বোধনের পর দেশের সামষ্টিক অর্থনীতি নিয়ে বিশেষ অধিবেশন হবে। এ ছাড়া দুই দিনে ছয়টি খাতওয়ারি কর্ম অধিবেশনে সামষ্টিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা ছাড়াও আলোচনা হবে কৃষি, খাদ্যের নিরাপত্তা ও জলবায়ু পরিবর্তন; অর্থনীতির ভিত্তি শক্তিশালীকরণে অবকাঠামো উন্নয়ন; সুশাসন ও উন্নয়ন; স্বাস্থ্য ও মানসম্পন্ন শিক্ষা; সামাজিক নিরাপত্তা এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নে নারীর সম্পৃক্ততা নিয়ে।
সংবাদ সম্মেলন: শেরেবাংলা নগরের ইআরডিতে গতকাল সংবাদ সম্মেলনে মোহাম্মদ মেজবাহউদ্দিন বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হতে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৮ থেকে ১০ শতাংশ করতে হবে। তাই প্রতিবছর গড়ে ৮ থেকে ১০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ লাগবে। এ লক্ষ্যে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্ব দরকার। এসব বিষয়ই দাতাদের সামনে তুলে ধরা হবে।
এলসিজির কো-চেয়ার ও ইউএসএআইডির হেড অব মিশন জ্যানিনা জেরুজালস্কি বলেন, কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ছয় শতাংশের ওপরে রয়েছে। তাই এই ফোরাম বাংলাদেশের মানুষের উন্নয়নের সঙ্গে নিবিড়ভাবে জড়িত।
এবারের সভার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের এশীয় অবকাঠামো বিনিয়োগ ব্যাংকের (এআইআইবি) মনোনীত প্রেসিডেন্ট জিন লিকুইন ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ভাইস প্রেসিডেন্ট ওয়েনকাই ঝাং থাকবেন। আরেকটি অধিবেশনে বিশেষ আলোচক হিসেবে থাকবেন ব্র্যাকের চেয়ারপারসন ফজলে হাসান আবেদ।

আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনি কি পরিচয় গোপন রাখতে চান
আমি প্রথম আলোর নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
View Mobile Site
   
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ই-মেইল: info@prothom-alo.info
 
topউপরে