সব

হাইকোর্টের নির্দেশনা

আসামির ডাকনামে আর মামলা নয়

মহিউদ্দিন ফারুক
প্রিন্ট সংস্করণ

‘ঘোড়া মাসুদ’, ‘কিলার সেলিম’ কিংবা ‘কালা আসলাম’—এ রকম নাম ব্যবহার করে এজাহার না করতে পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। পরিবার থেকে রাখা হয়নি—এমন ডাকনাম ও আসামির সামাজিক মর্যাদার হানি ঘটে, আসামির এমন নামে মামলা গ্রহণ করতে পুলিশকে নিষেধ করা হয়েছে। দেশের সব পুলিশ সুপার ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের (ওসি) প্রতি এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

থানায় যাতে এ রকম নামের মামলা বা এজাহার গ্রহণ না করা হয়, সে জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব এবং পুলিশের মহাপরিদর্শককে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নিতে বলেছেন উচ্চ আদালত।   

বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ১১ এপ্রিল এই আদেশ দেন। প্রত্যেক আসামির বিরুদ্ধে ডাকনাম ব্যবহার করে ঢাকার কদমতলী থানায় করা একটি মামলায় এক আসামির আগাম জামিন আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ আদেশ আসে। আদালত বলেছেন, দেখা যায়, অনেক মামলায় আসামির ডাকনাম ব্যবহার করেন কিছু বাদী এবং পুলিশ ওই ডাকনামে মামলা নিবন্ধন করে। এটি দুঃখজনক ও এ ধরনের কর্মকাণ্ড গ্রহণযোগ্য নয়।

নথিপত্রে দেখা যায়, বলপ্রয়োগ, মারধর ও চুরির অভিযোগে গত বছরের ১০ নভেম্বর কদমতলী থানায় ওই মামলাটি করেন জাহাঙ্গীর আলম নামের এক ব্যক্তি। এজাহারের পাঁচ আসামির একজন হলেন ওমর হক। তাঁকে ওই এজাহারে ‘বাইট্টা ওমর’ হিসেবেও উল্লেখ করা হয়েছে। ওমর হক উচ্চ আদালতে আগাম জামিন চাইতে গেলে ডাকনামের ব্যাপারটি আদালতের নজরে আসে।

ওই জামিন আবেদন নিষ্পত্তি করে ২৮ মার্চ আদালত একটি আদেশে বলেন, এফআইআরের কলামে দেখা যায়, প্রতিটি আসামির ডাকনাম দেওয়া রয়েছে, যা বাদী নিজে দিয়েছেন, এগুলো ভালো নাম নয়। বাদী কেন প্রতিটি আসামির বিরুদ্ধে এমন ডাকনাম যুক্ত করলেন, তা নিশ্চিত হওয়া প্রয়োজন। আদালত বাদীর কাছে এর ব্যাখ্যা জানতে চান।

যোগাযোগ করা হলে গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘হাইকোর্ট যে নির্দেশনা দিয়েছেন, আমার দৃষ্টিকোণ থেকে চমৎকার নির্দেশনা। কারণ, মানবাধিকারের দৃষ্টিকোণ থেকে বললে বলতে হবে, মানবিক মর্যাদাটি হচ্ছে মানবাধিকারের সবচেয়ে বড় বিষয়।’

দুই মামলারই সাক্ষ্য থেমে আছে

দুই মামলারই সাক্ষ্য থেমে আছে

default image

আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শুরু

আট পুলিশ কর্মকর্তার সাক্ষ্য, পরবর্তী তারিখ ৩০ এপ্রিল

আট পুলিশ কর্মকর্তার সাক্ষ্য, পরবর্তী তারিখ ৩০ এপ্রিল

খুনের কথা স্বীকার করেনি কেউ

খুনের কথা স্বীকার করেনি কেউ

মন্তব্য ( ৩ )

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
1 2 3 4
 
আরও মন্তব্য

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

default image

উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় জোড়া খুন অভিযোগপত্র হয়নি এক বছরেও

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় এক স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় পরিবারের দুই...
default image

৩ এসআইয়ের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা

৫০ হাজার টাকা ঘুষের দাবিতে এক যুবক ও তার মাকে মারধরের অভিযোগে ঝালকাঠির নলছিটি...
default image

সাতক্ষীরায় গৌতম হত্যা মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল

সাতক্ষীরায় কলেজছাত্র গৌতম হত্যা মামলায় ১০ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র...
default image

সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অর্থায়নের মামলা নিষ্পত্তির উদ্যোগ

সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অর্থায়নের অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তির...
‘আইপি লগ’ কমপক্ষে এক বছর সংরক্ষণে বিটিআরসির নির্দেশ

সাইবার অপরাধ ‘আইপি লগ’ কমপক্ষে এক বছর সংরক্ষণে বিটিআরসির নির্দেশ

দেশের সব ইন্টারনেট সেবাদানকারী (আইএসপি) প্রতিষ্ঠানকে ‘আইপি লগ’ কমপক্ষে এক বছর...
বার্নাব্যুর মঞ্চ দখল করে নিলেন মেসি

বার্নাব্যুর মঞ্চ দখল করে নিলেন মেসি

লিগ টেবিলের সুবিধাজনক জায়গায় দাঁড়িয়েই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনার বিপক্ষে...
দুই মামলারই সাক্ষ্য থেমে আছে

রানা প্লাজা ধসের ৪বছর দুই মামলারই সাক্ষ্য থেমে আছে

বিশ্বের সবচেয়ে বড় শিল্পভবন দুর্ঘটনায় ১ হাজার ১৩৬ জন শ্রমিকের মৃত্যুর বিচার...
হয়ে গেল ইউনিসের ১০ হাজার

হয়ে গেল ইউনিসের ১০ হাজার

চা বিরতির পর ওয়েস্ট ইন্ডিজের রোস্টন চেজকে সুইপ করেই মাইলফলকটা ছুঁয়ে ফেললেন...
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
© স্বত্ব প্রথম আলো ১৯৯৮ - ২০১৭
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভেনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা ১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ইমেইল: info@prothom-alo.info