সব

নির্বাচন কমিশনারদের পরিচয়টা জরুরি: শামসুল হুদা

নিজস্ব প্রতিবেদক

.সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এ টি এম শামসুল হুদা বলেছেন, নির্বাচন কমিশনার হিসেবে যাঁদের নিয়োগ দেওয়া হবে, তাঁদের পরিচয়টা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাঁরা যদি কোনো রাজনৈতিক দলের লোক হয়ে থাকেন বা রাজনৈতিক দল থেকে সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে থাকেন, তাহলে তাঁদের নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নিয়োগ দেওয়া উচিত হবে না। 

আজ বৃহস্পতিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘নির্বাচন কমিশনার নিয়োগে প্রস্তাবিত আইনের খসড়া ও প্রাসঙ্গিক ভাবনা’ শীর্ষক গোলটেবিলে শামসুল হুদা এসব কথা বলেন। সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন ওই গোলটেবিলের আয়োজন করে। তাতে অংশ নিয়ে বেশির ভাগ বক্তা সংবিধানের নির্দেশনা অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য একটি আইন করার দাবি জানান।
শামসুল হুদা বলেন, তাঁরা আইনের একটি খসড়া প্রণয়ন করেছিলেন। সে সময় যেসব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে তাঁরা আলাপ করেছিলেন, তারা সবাই এ ব্যাপারে সম্মত হয়েছিল। তবে তারা চিন্তাও করেনি যে পরবর্তী সময়ে রাজনৈতিক বাস্তবতা এ রকম হয়ে যাবে, দ্বিতীয় বৃহত্তম রাজনৈতিক দল সংসদে থাকবে না।
সুজনের সভাপতি এম হাফিজউদ্দিন খান বলেন, সংবিধানে নির্বাচন কমিশনে নিয়োগের বিষয়ে আইন প্রণয়ন করার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না। রাষ্ট্রপতি যে ২২টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ করেছেন, তাদের মধ্যে বিএনপি ছাড়া সবাই আইন প্রণয়নের কথা বলেছে। এ টি এম শামসুল হুদার নেতৃত্বে গঠিত কমিশন এ-সংক্রান্ত একটি আইনের খসড়া তৈরি করেছিল। কিন্তু সেই আইনকে কাজে লাগানো হয়নি।
সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, নির্বাচন কমিশনের অংশীদার সরকার এবং রাজনৈতিক দল। এ ছাড়া নির্বাচনের সময়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। নির্বাচনের সময়ে নির্বাচন কমিশনই মূলত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ভূমিকা পালন করে থাকে। তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিষয়ে একটি আইন প্রণয়ন করা অত্যন্ত জরুরি। বিভিন্ন স্তরের জনগণকে নিয়ে সার্চ কমিটি বড় করা প্রয়োজন। বিদায়ী প্রধান নির্বাচন কমিশনার বা অন্য কোনো কমিশনারকেও সার্চ কমিটির সদস্য হিসেবে রাখা যেতে পারে।
মূল প্রবন্ধে সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, সংবিধানের ১১৮ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের এখতিয়ার মহামান্য রাষ্ট্রপতির। তবে এই নিয়োগ হতে হবে ‘উক্ত বিষয়ে প্রণীত কোনো আইনের বিধানাবলি-সাপেক্ষে’। তবে দুর্ভাগ্যবশত সংবিধান রচনার ৪৬ বছর পরেও এমন একটি আইন কোনো সরকারই প্রণয়ন করেনি। তাই সংবিধান নির্দেশিত এ আইনটি প্রণয়ন করা আজ জরুরি হয়ে পড়েছে। কারণ, আইন প্রণয়ন না করে আবারও নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করা হলে বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়াতে এবং জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে। এ ছাড়া যেহেতু সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর কারণে আগামী সাধারণ নির্বাচনও দলীয় সরকারের অধীনে হবে বলেই মনে হয়, তাই যথাযথ আইন প্রণয়নের মাধ্যমে সৎ ও যোগ্য ব্যক্তিদের নিয়ে একটি শক্তিশালী, নিরপেক্ষ ও মেরুদণ্ডসম্পন্ন নির্বাচন কমিশন নিয়োগ করা আজ আবশ্যক হয়ে পড়েছে।
সুজনের নির্বাহী সদস্য সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, জাতির ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে আগামী নির্বাচন কমিশন কেমন হবে তার ওপর। এই নির্বাচন কমিশন যদি গ্রহণযোগ্য ও দক্ষ না হয়, তাহলে আগামী নির্বাচন নিয়েও প্রশ্ন থেকে যাবে এবং তা জাতির জন্য বিপর্যয় বয়ে আনবে।
বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ইনাম আহমেদ চৌধুরী বলেন, সার্চ কমিটি নিরপেক্ষ হলেও তারা যদি তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে না পারে, তাহলে তা কোনো সুফল বয়ে আনবে না। শুধু তা-ই নয়, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন ইস্যুসহ নির্বাচনকালীন সরকারব্যবস্থা নিয়ে প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের মধ্যে সমঝোতা হওয়া অত্যন্ত জরুরি।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আসিফ নজরুল বলেন, আগামী নির্বাচনে ইভিএম চালু করা ঠিক হবে না। কেননা ইভিএম অযোগ্য ও অদক্ষ লোকদের কাছে গেলে এর অপব্যবহার হতে পারে। তাই আরও ভেবেচিন্তে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

default image

তিন ভাই মারা গেছেন, আশঙ্কাজনক আরেকজনও

বাংলাদেশের গ্যাসক্ষেত্র বেচে দিচ্ছে শেভরন

বাংলাদেশের গ্যাসক্ষেত্র বেচে দিচ্ছে শেভরন

default image

সিডিএ চেয়ারম্যান পদে আবদুচ ছালামকে ষষ্ঠ দফায় নিয়োগ

default image

ঢাকায় চীনের বিশেষ দূত, আলোচনায় রোহিঙ্গা

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
1 2 3 4
 
আরও মন্তব্য

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

হাওরে এনজিওর ঋণ মওকুফ চান সাংসদ

হাওরে এনজিওর ঋণ মওকুফ চান সাংসদ

সুনামগঞ্জের ফসলহারা কৃষকদের মধ্যে যাঁদের এনজিও ঋণ আছে, তাঁদের ঋণের কিস্তি...
default image

কুড়িগ্রাম রৌমারী সীমান্তে আবার ভারতীয় বুনো হাতির দল

কুড়িগ্রামের রৌমারী সীমান্তে রাতের আঁধারে আবারও ৩০ থেকে ৩৫টি ভারতীয় বুনো হাতি...
ঘর, রাস্তা ডুবেছে ময়লা পানিতে

মিরপুর-১৪ নম্বরের বাগানবাড়ি বস্তি ঘর, রাস্তা ডুবেছে ময়লা পানিতে

মিরপুর-১৪ নম্বরের বাগানবাড়ি খালের পাশে গড়ে উঠেছে বাগানবাড়ি বস্তি। খালে...
ডিবির ৮ জনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা

ডিবির ৮ জনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা

এক দোকান কর্মচারীকে তুলে নিয়ে তিন লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে চট্টগ্রাম নগর...
ডিবির ৮ জনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা

ডিবির ৮ জনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা

এক দোকান কর্মচারীকে তুলে নিয়ে তিন লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে চট্টগ্রাম নগর...
হাওরে ৪১ কোটি টাকার ১২৭৬ টন মাছ মরেছে

হাওরে ৪১ কোটি টাকার ১২৭৬ টন মাছ মরেছে

হাওরের পানিদূষণে প্রায় ৪১ কোটি টাকার ১ হাজার ২৭৬ টন মাছ মারা গেছে। এ ছাড়া...
এখনই আইপিএল থেকে ফিরছেন না সাকিব-মোস্তাফিজ

এখনই আইপিএল থেকে ফিরছেন না সাকিব-মোস্তাফিজ

ভারত থেকে কাল মোস্তাফিজুর রহমান ফিরছেন এমনই শোনা যাচ্ছিল কদিন ধরে। কিন্তু...
ঘর, রাস্তা ডুবেছে ময়লা পানিতে video

মিরপুর-১৪ নম্বরের বাগানবাড়ি বস্তি ঘর, রাস্তা ডুবেছে ময়লা পানিতে

মিরপুর-১৪ নম্বরের বাগানবাড়ি খালের পাশে গড়ে উঠেছে বাগানবাড়ি বস্তি। খালে...
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
© স্বত্ব প্রথম আলো ১৯৯৮ - ২০১৭
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভেনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা ১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ইমেইল: info@prothom-alo.info