বইয়ে সাম্প্রদায়িক বিষয় অন্তর্ভুক্তির প্রতিবাদ

আন্দোলনে যাচ্ছে প্রগতিশীল গণসংগঠনগুলো

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: | প্রিন্ট সংস্করণ

পাঠ্যপুস্তকে সাম্প্রদায়িক ও ধর্মীয় বৈষম্যমূলক বিষয় অন্তর্ভুক্ত এবং গুরুত্বপূর্ণ ও প্রগতিশীল লেখকদের লেখা বাদ দেওয়া ও নানা অসংগতির প্রতিবাদে ১৫ জানুয়ারি এনসিটিবির সামনে বিক্ষুব্ধ অবস্থান সমাবেশ কর্মসূচি পালন করবে প্রগতিশীল গণসংগঠনগুলো। একই দিনে দেশের প্রতিটি জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার সামনে এই কর্মসূচি পালন করা হবে।
গতকাল বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে প্রগতিশীল গণসংগঠনগুলোর ব্যানারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। এ সময় সাম্প্রদায়িক, বৈষম্যমূলক ও ভুলে ভরা পাঠ্যপুস্তক প্রত্যাহার, বাহাত্তরের সংবিধানের চার মূলনীতি—গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ও জাতীয়তাবাদের আদর্শের ভিত্তিতে পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন, প্রগতিশীল লেখকদের লেখা সংযোজন করা, সাম্প্রদায়িক ও ধর্মীয় উসকানিমূলক বক্তব্য প্রত্যাহার এবং এসবের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ আট দফা দাবি জানানো হয়। সরকার এসব বিষয়ে অবিলম্বে যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে কঠোর কর্মসূচি দেওয়ারও হুমকি দেওয়া হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক জামসেদ আনোয়ার। এতে বলা হয়, ২০১৭ সালের প্রথম দিনেই শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া পাঠ্যপুস্তকের ঝকঝকে মলাটের ভেতরে বীভৎস মৌলবাদী পরিকল্পনায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে সম্প্রদায়গত, জাতিগত ও নারী-পুরুষের বৈষম্য। সরকার জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের কথা বললেও, পাঠ্যপুস্তকে জঙ্গিবাদের সুপ্ত উপাদান ঢুকিয়ে দিচ্ছে। পাঠ্যপুস্তককে দলীয় প্রচারপত্র বানানো হয়েছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন উদীচীর সভাপতি সফিউদ্দিন আহমদ, রণেশ দাশগুপ্ত চলচ্চিত্র সংসদের সভাপতি চলচ্চিত্রকার মশিউদ্দিন শাকের, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সাবেক ডিন চিত্রশিল্পী মতলুব আলী, কেন্দ্রীয় খেলাঘর আসরের সাধারণ সম্পাদক মোখলেসুর রহমান, প্রগতি লেখক সংঘের সংগঠক কবি সাখাওয়াত টিপু, ভাস্কর রাসা, প্রকাশক রবীন আহসান, উদীচীর সহসাধারণ সম্পাদক সঙ্গীতা ইমাম, ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জি এম জিলানী শুভ প্রমুখ।
ভুলে ভরা বই বাতিলের দাবি ছাত্রফ্রন্টের
ভুলে ভরা ও ‘সাম্প্রদায়িক ভাবাদর্শে প্রণীত’ পাঠ্যপুস্তকগুলো বাতিলের দাবি জানিয়েছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট। একই সঙ্গে এসব বই প্রণয়নকারী ব্যক্তিদের শাস্তি দেওয়ার দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।
গতকাল মতিঝিলে পাঠ্যবই ছাপাকারী সংস্থা জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) সামনে বিক্ষোভ-সমাবেশে এই দাবি জানায় সংগঠনটি। এর আগে জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে মিছিল নিয়ে বোর্ডের সামনে আসেন সংগঠনটির নেতা-কর্মীরা।
সংগঠনের সভাপতি ইমরান হাবীব বলেন, এসব পাঠ্যপুস্তক বাতিল না করলে তাঁরা লাগাতার আন্দোলনে যাবেন।
চলতি শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যপুস্তকে বিভিন্ন ধরনের ভুলভ্রান্তি ও অসংগতি রয়েছে। আলোচিত বেশ কিছু গল্প ও কবিতা বাদ দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনা চলছে।
১৬ জানুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সামনে ছাত্র ফেডারেশনের বিক্ষোভ
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক জানান, পাঠ্যপুস্তকে ভুলের ঘটনায় শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগসহ চার দফা দাবিতে ১৬ জানুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সামনে বিক্ষোভ করবে বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন। গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যানটিনে সংবাদ সম্মেলনে এই কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠন করেন ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি সৈকত মল্লিক।

আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনি কি পরিচয় গোপন রাখতে চান
আমি প্রথম আলোর নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
View Mobile Site
   
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ই-মেইল: info@prothom-alo.info
 
topউপরে