উত্তর আমেরিকায় যাত্রা শুরু করছে প্রথম আলো

নিউইয়র্ক প্রতিনিধি | আপডেট:
 

উত্তর আমেরিকায় যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে প্রথম আলো। আগামী বছরের মার্চ মাস থেকে নিউইয়র্কে প্রথম আলোর সাপ্তাহিক ছাপা কাগজ প্রকাশিত হতে যাচ্ছে।

স্থানীয় সময় গতকাল বৃহস্পতিবার নিউইয়র্কের কুইন্সের ওয়ার্ল্ডস ফেয়ার মেরিনায় প্রবাসীদের সম্মিলনী অনুষ্ঠান হয়। ভিডিওবার্তায় বাংলাদেশ থেকে তাঁদের উদ্দেশে দেওয়া বক্তব্যে প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান এ ঘোষণা দেন।

প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান বলেন, পাঠকের ভালোবাসায় প্রথম আলো সামনে এগোচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে আগামী বছরের মার্চ মাস থেকে উত্তর আমেরিকায় সাপ্তাহিক হিসেবে যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে প্রথম আলো।

অনলাইন, ইপেপার, ছাপা কাগজ, ফেসবুকসহ সব ক্ষেত্রে সবার চেয়ে প্রথম আলোর এগিয়ে থাকার কথা জানান মতিউর রহমান। অনেক দূর থেকে বিশেষ করে নিউইয়র্কে যাঁরা প্রথম আলো পড়েন তাঁদের প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা জানান।

বক্তব্য দিচ্ছেন প্রথম আলো উত্তর আমেরিকার বিপণন এবং ব্যবস্থাপনার দায়িত্বপ্রাপ্ত নর্দান লাইটস মিডিয়ার কর্ণধার সাইফুল ইসলাম সিদ্দিক। ছবি: প্রথম আলোপ্রথম আলো উত্তর আমেরিকার বিপণন এবং ব্যবস্থাপনার দায়িত্বপ্রাপ্ত নর্দান লাইটস মিডিয়ার কর্ণধার সাইফুল ইসলাম সিদ্দিক তাঁর বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশের প্রধান দৈনিক প্রথম আলো দূর প্রবাসের বাংলা ভাষাভাষীদের হাতে তুলে দেওয়ার দায়িত্ব পেয়ে নর্দান লাইটস গর্বিত।
যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম আলোর বিশেষ প্রতিনিধি হাসান ফেরদৌস বলেন, যা কিছু ভালো তার সঙ্গে প্রথম আলো। প্রথম আলো ভালোর সঙ্গে আছে বলেই প্রবাসের মানুষের মাঝেও এত জনপ্রিয়। তিনি প্রথম আলোর উত্তর আমেরিকার যাত্রাকালে সবাইকে সঙ্গে থাকতে আহ্বান জানান।
প্রথম আলো উত্তর আমেরিকার ব্যুরোপ্রধান ইব্রাহীম চৌধুরী বলেন, আজকে আলোকিত সুধীজনদের উপস্থিতি আমাদের ঋদ্ধ করেছে।
অনুষ্ঠানে প্রথম আলোর ডিজিটাল কার্যক্রমের বর্ণনা তুলে ধরেন এই বিভাগের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা এহতেরাম উদ্দিন।
অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করেন নিম্মী নাহার।
বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে অনুষ্ঠান শুরু হয়। বক্তৃতা, গান, নাচ, কবিতা, বাঁশির সুরে ভরপুর ছিল অনুষ্ঠান।
অনুষ্ঠানে পরিবেশন করা হয় প্রথম আলোকে নিয়ে গান ‘সামনে চলো, পাল তুলো, প্রথম আলো আছে আশপাশে, এই সুরে, দূর প্রবাসে সব বাঙালির প্রাণের উচ্ছ্বাসে’। নৃত্য পরিচালনায় ছিল হৃলা ড্যান্স গ্রুপ। স্বর্নালী রহমান, জেনিফা রহমান, আলিয়া হাজরা, ফারদিনা ইউসুফ, সোমিয়া, সুইটি এবং নীলা নৃত্য পরিবেশন করেন।
পরে একক নৃত্য পরিবেশন করেন সাদিয়া মোহাইমিন। এরপর দুটি গান পরিবেশন করে দর্শক মাতায় সরগম ব্যান্ড।
তানজিম আলম ও মোসনাদ আলম বাঁশি বাজিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেন।
মঞ্চে সুকান্ত ভট্টাচার্যের ‘আঠারো বছর বয়স’ কবিতাটি আবৃত্তি করেন তৈমুর ও নবনী দম্পতি।
রাতে মঞ্চে সংগীত পরিবেশন করেন সৈয়দ আব্দুল হাদীর মেয়ে তনিমা হাদী।

সংগীত পরিবেশন করছেন স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রের শিল্পী রথীন্দ্রনাথ রায়। ছবি: প্রথম আলোসবশেষে মঞ্চে আসেন স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রের শিল্পী রথীন্দ্রনাথ রায়। পরিবেশন করেন ‘তীর হারা এই ঢেউয়ের সাগর’ গানটি।

দর্শকদের স্বাগত জানান মমিনুর রহমান, গোপাল স্যানাল, শাহান চৌধুরী, ইশতেহাক চৌধুরী ও সালমান। রেডিয়েন আইপিটিভি এবং টাইম টেলিভিশন অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করে। এ ছাড়া নিউইয়র্কের বেশির ভাগ গণমাধ্যমের প্রতিনিধিরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনি কি পরিচয় গোপন রাখতে চান
আমি প্রথম আলোর নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
View Mobile Site
   
সম্পাদক ও প্রকাশক: মতিউর রহমান
সিএ ভবন, ১০০ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫
ফোন: ৮১৮০০৭৮-৮১, ফ্যাক্স: ৯১৩০৪৯৬, ই-মেইল: info@prothom-alo.info
 
topউপরে